শুক্রবার, ডিসেম্বর ০৮, ২০১৭

আমাদের বীরশ্রেষ্ঠদের কথা


মহান মুক্তিযুদ্ধে আত্মত্যাগের সর্বোচ্চ স্বীকৃতি হিসেবে সাতজন বীরকে বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে মরণোত্তর ‘বীরশ্রেষ্ঠ' উপাধি দেয়া হয়৷ দেশের বিভিন্ন জায়গায় আছে তাঁদের নানান স্মৃতি৷ চলুন ঘুরে আসি সে জায়গাগুলো থেকে৷


বীরশ্রেষ্ঠ মোহাম্মদ রুহুল আমিন
নোয়াখালী জেলার সোনাইমুড়ি উপজেলার বাঘপাঁচরা গ্রামে ১৯৩৫ সালের জুন মাসে জন্মগ্রহণ করেন মোহাম্মদ রুহুল আমিন৷ বাবা মোহাম্মদ আজহার ও মা জুলেখা বেগম৷ হাইস্কুল পাশ করে ১৯৫৩ সালে তিনি যোগ দেন পাকিস্তান নৌবাহিনীতে৷
মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে ১৯৭১  সালের এপ্রিলে ত্রিপুরা সীমান্ত অতিক্রম করে ২নং সেক্টরে যোগ দেন রুহুল আমিন, অংশ নেন সম্মুখ সমরে৷ সেপ্টেম্বর মাসে ‘বাংলাদেশ নৌবাহিনী' গঠনের লক্ষ্যে সকল সেক্টর থেকে প্রাক্তন নৌ-সেনাদের আগরতলায় সংগঠিত করা হলে সেখানে যান রুহুল আমিন৷ পরে সেখান থেকে চলে আসেন কলকাতায়৷ ভারত সরকারের দেয়া গানবোট ‘পলাশ'এর ইঞ্জিন রুম আর্টিফিশার হিসেবে নিয়োগ পান তিনি৷
৬ ডিসেম্বর মংলা বন্দরে পাকিস্তানি নৌঘাঁটি পিএনএস তিতুমীর দখলের উদ্দেশ্যে মিত্রবাহিনীর সঙ্গে ভারতের হলদিয়া নৌঘাঁটি থেকে রওনা হন৷  পরদিন দুপুরে খুলনা শিপইয়ার্ডের কাছাকাছি পৌঁছাতেই পাকিস্তানী জঙ্গি বিমান শুরু করে গোলা বর্ষণ৷ শত্রু পক্ষের আক্রমণে সেখানেই শহীদ তিনি৷ পরে  রূপসা নদীর তীরে সমাহিত করা হয় তাকে৷
২০০৩ সালে এ সমাধিস্থলেই দেড় একর জমি জুড়ে প্রতিষ্ঠা করা হয় বীরশ্রেষ্ঠ রুহুম আমিন সমাধি কমপ্লেক্স৷ এই বীরের সম্মানে জন্মভূমি বাঘপাঁচরা গ্রামের নাম পরিবর্তন করে রাখা হয়েছে ‘রুহুল আমিন নগর'৷ সরকারি উদ্যোগে ২০০৮ সালে সেখানে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ রুহুল আমিন গ্রন্থাগার ও স্মৃতি জাদুঘর৷


বীরশ্রেষ্ঠ ল্যান্স নায়েক নূর মোহাম্মদ শেখ
নূর মোহাম্মদ শেখের জন্ম ১৯৩৬ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারিতে, নড়াইল জেলার মহিষখোলা গ্রামে৷ বাবা মোহাম্মদ আমানত শেখ, মা জেন্নাতুন্নেসা৷ ছেলেবেলায় বাবা-মাকে হারানোয় বেশিদূর লেখাপড়া করতে পারেননি৷ ১৯৫৯ সালে যোগ দেন পূর্ব পাকিস্তান রাইফেলস (ইপিআর)-এ৷ ১৯৭০ সালে ল্যান্স নায়েক পদে উন্নীত হয়ে আসেন যশোর সেক্টর সদর দপ্তরে৷

১৯৭১ সালের মার্চ মাসে গ্রামের বাড়িতে ছুটি কাটাতে আসেন নূর মোহাম্মদ৷ জাতির সে ক্রান্তিলগ্নে নিজেকে দূরে সরিয়ে রাখতে পারেননি তিনি৷ যোগ দেন মুক্তিবাহিনীতে৷ ১৯৭১-এর ৫ সেপ্টেম্বর নূর মোহাম্মদকে অধিনায়ক করে একটি স্ট্যান্ডিং পেট্রোল পাঠানো হয় যশোর জেলার গোয়ালহাটি গ্রামে৷ টের পেয়ে পাক সেনারা চারদিক থেকে ঘিরে ফেলে তাঁদের৷ শুরু হয় গুলিবর্ষণ৷ সহযোদ্ধাদের বাঁচাতে জীবনবাজি রেখে আক্রমনের মোকাবেলা করতে থাকেন নূর মোহাম্মদ শেখ৷ এক পর্যায়ে কামানের গোলার আঘাতে লুটিয়ে পড়েন সেখানেই৷ পরে তাঁর মৃতদেহ উদ্ধার করেন সহযোদ্ধারা৷
যশোরের কাশিপুর গ্রামে সমাহিত আছেন এই বীর যোদ্ধা৷ সেখানে এখন তাঁর নামে রয়েছে একটি স্মৃতি জাদুঘর ও পাঠাগার৷ তাঁর সম্মানে জন্মস্থান মহিষখোলা গ্রামের নাম পরিবর্তন করে রাখা হয়েছে ‘নূর মোহাম্মদ নগর'৷

বীরশ্রেষ্ঠ ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট মতিউর রহমান
ঢাকার আগাসাদেক রোডের পৈতৃক বাড়ি ‘মোবারক লজ'-এ ১৯৪১ সালের ২৯ নভেম্বর জন্মগ্রহণ করেন মতিউর রহমান৷ বাবা মৌলভী আবদুস সামাদ, মা সৈয়দা মোবারকুন্নেসা খাতুন৷ তাঁর পৈত্রিক বাড়ি নরসিংদী জেলার রায়পুরা থানার রামনগর গ্রামে৷ পশ্চিম পাকিস্তানের সারগোদার পাকিস্তান বিমানবাহিনী পাবলিক স্কুলে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত লেখাপড়া শেষে যোগ দেন পাকিস্তান বিমানবাহিনী অ্যাকাডেমিতে৷ ১৯৬৩ সালের জুন মাসে কমিশন পেয়ে চলে আসেন পশ্চিম পাকিস্তানের রিসালপুরে৷ পরের বছর পেশোয়ারে জেট পাইলট নিযুক্ত হন৷

১৯৭১ সালে কর্মরত ছিলেB জেট ফ্লায়িং ইন্সট্রাক্টর হিসেবে৷ ২৫ মার্চের কালোরাতে ছুটি কাটাতে তিনি ছিলেন রায়পুরের রামনগর গ্রামে৷ মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে তিনি স্থানীয়ভাবে মুক্তিযোদ্ধাদের সংগঠিত করা শুরু করেন৷ মে মাসে পাকিস্তানে গিয়ে চাকরিতে যোগ দিলেও পরিকল্পনা করছিলেন মুক্তিবাহিনীকে সাহায্য করার৷ ঠিক করেছিলেন, একটি বিমান ছিনতাই করে যোগ দেবেন মুক্তিযুদ্ধে৷

২০ আগস্ট  মতিউর রহমানের তত্ত্বাবধানে করাচির মশরুর বিমানঘাঁটি থেকে টি-৩৩ বিমান উড়তে শুরু করার পরেই বিমানটির নিয়ন্ত্রণ নিজ হাতে নেয়ার চেষ্টা করেন তিনি৷ কিন্তু ব্যর্থ হন৷ বিমানটি বিধ্বস্ত হয় ভারতীয় সীমান্তের কাছে৷ সেখান থেকে তাঁর লাশ উদ্ধার করে সমাহিত করা হয় মশরুর বিমানঘাঁটির চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীদের কবরস্থানে৷

২০০৬ সালের ২৪ জুন মতিউর রহমানের দেহাবশেষ পাকিস্তান থেকে বাংলাদেশে ফিরিয়ে আনা হয়, পূর্ণ মর্যাদায় পুনরায় সমাহিত করা হয় শহীদ বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে৷ এই বীরের সম্মানে নরসিংদী জেলার রামনগর গ্রামের নাম এখন ‘মতিউর নগর'৷ সরকারি উদ্যোগে এখানে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে বীরশ্রেষ্ঠ মতিউর রহমান স্মৃতি

বীরশ্রেষ্ঠ ল্যান্সনায়েক মুন্সি আব্দুর রউফ
জন্ম ১৯৪৩ সালের ১ মে ফরিদপুর জেলার মধুখালী উপজলোর সালামতপুরে গ্রামে৷ বাবা মুন্সি মেহেদি হাসান, মা মুকিদুন্নেসা৷ সংসারের হাল ধরতে অষ্টম শ্রেণিতে লেখাপড়ার পাট চুকিয়ে ১৯৬৩ সালে যোগ দেন ইস্ট পাকিস্তান রাইফেলস ‘ইপিআর' এ৷ স্বাধীনতা যুদ্ধের শুরুতে চট্টগ্রামে ১১ নম্বর উইং-এ কর্মরত ছিলেন তিনি৷

মুক্তিযুদ্ধ শুরুর পর অষ্টম ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টের সঙ্গে যুক্ত হয়ে পার্বত্য চট্টগ্রামের রাঙামাটি-মহালছড়ি জলপথের দায়িত্ব পান৷ বুড়িঘাট এলাকার চিংড়িখালের দুই পাড়ে অবস্থান নিয়ে গড়ে তোলেন প্রতিরক্ষা ঘাঁটি৷ ৮ এপ্রিল পাকিস্তানি বাহিনী এ প্রতিরক্ষা ঘাঁটি আক্রমণ করে৷ দীর্ঘ যুদ্ধের পর পাক হানাদারদের একটি মর্টারের গোলা তাঁর বাঙ্কারে পড়লে সেখানেই মারা যান তিনি৷

বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সি আব্দুর রউফের সমাধি রয়েছে পার্বত্য জেলা রাঙামাটির নানিয়ার চরে৷ তাঁর সম্মানে সালামতপুরের নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় ‘রউফ নগর', যেখানে রয়েছে তাঁর স্মৃতিরক্ষার্থে জাদুঘর ও পাঠাগার৷

বীরশ্রেষ্ঠ সিপাহী মোহাম্মদ মোস্তফা কামাল
১৯৪৭ সালের ১৬ ডিসেম্বর ভোলা জেলার দৌলতখান উপজেলার পশ্চিম হাজীপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন মোহাম্মদ মোস্তফা কামাল৷ বাবা হাবিবুর রহমান, মা মালেকা বেগম৷ ২০ বছর বয়সে বাড়ি ছেড়ে পালান৷ ফিরে আসেন ১৯৬৮ সালে, পাকিস্তানের চতুর্থ ইস্ট-বেঙ্গল রেজিমেন্টে সৈনিকের চাকরি পেয়ে৷
১৯৭১ সালে মেজর খালেদ মোশারফের অধীনে যোগ দেন মুক্তিযুদ্ধে৷ ১৭ এপ্রিল পাকিস্তানি বাহিনীর  সাথে সম্মুখ যুদ্ধে অংশ নেন৷ প্রথম দিন পিছু হঠলেও পরের দিন শত্রুরা চারপাশ থেকে ঘিরে ফেলে তাঁদের৷ গুলি শেষ না হওয়া পর্যন্ত একাই লড়াই চালিয়ে বাঁচিয়ে দেন সহযোদ্ধাদের৷ এক পর্যায়ে মারাত্মক জখম অবস্থায় ধরা পড়েন পাকিস্তানিদের হাতে৷ নৃশংসভাবে বেয়নেট দিয়ে খুঁচিয়ে মারা হয় তাঁকে৷ পাকবাহিনী চলে যাওয়ার পর গ্রামবাসীরা মোস্তফা কামালকে সমাহিত করেন সেখানেই৷
এ বীরের সম্মানে তাঁর গ্রামের নাম বদলে রাখা হয় কামাল নগর, যেখানে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে স্মৃতি জাদুঘর ও পাঠাগার৷

বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দীন জাহাঙ্গীর
জন্ম ১৯৪৯ সালের ৭ মার্চ বরিশাল জেলার বাবুগঞ্জ উপজেলার রহিমগঞ্জ গ্রামে৷ বাবা আব্দুল মোতালেব হাওলাদার, মা সাফিয়া বেগম৷  ১৯৬৪ সালে বিজ্ঞান বিভাগে ম্যাট্রিকুলেশন এবং ১৯৬৬ তে তিনি বরিশাল বি.এম কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করেন৷ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিসংখ্যান বিভাগে অধ্যয়নরত অবস্থায় ১৯৬৭ সালে পাকিস্তান মিলিটারি অ্যাকাডেমিতে ক্যাডেট হিসেবে যোগদান করেন তিনি৷

স্বাধীনতা যুদ্ধ শুরুর সময় তিনি পাকিস্তানে ১৭৩ ইঞ্জিনিয়ারিং ব্যাটেলিয়ানে 'পাকিস্তান-চীন মহাসড়ক' নির্মাণে কর্তব্যরত ছিলেন৷ যুদ্ধে অংশ নিতে ১০ জুন তিনি কয়েকদিনের ছুটি নেন৷ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পাকিস্তানি সেনা ও সীমান্তরক্ষীদের দৃষ্টি এড়িয়ে শিয়ালকোট সিমান্ত দিয়ে ভারতীয় এলাকায় প্রবেশ করেন৷

সেখান থেকে দিল্লি হয়ে আসেন কলকাতায়৷ পরে বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী পশ্চিমবঙ্গের মালদহ জেলার মেহেদিপুরে মুক্তিবাহিনীর ৭নং সেক্টরে সাব সেক্টর কমান্ডার হিসাবে যোগ দেন তিনি৷ সেখানে সেক্টর কমান্ডার মেজর নাজমুল হকের অধীনে যুদ্ধ করেন৷ বিভিন্ন রণাঙ্গনে অসাধারণ কৃতিত্ব দেখানোর কারণে তাঁকে রাজশাহীর চাঁপাইনবাবগঞ্জ শহর দখলের দায়িত্ব দেয়া হয়৷ ১৯৭১ সালের ১০ ডিসেম্বর আনুমানিক ৫০ জন মুক্তিযোদ্ধা নিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করেন এবং চাঁপাইনবাবগঞ্জের পশ্চিমে বারঘরিয়ায় অবস্থান নেন৷ ১১ ডিসেম্বর সেখানে ভারতীয় বাহিনীর গোলন্দাজ বাহিনীর গোলাবর্ষণ করার কথা ছিল৷ কিন্তু সেটি না হওয়ায় ১২ ও ১৩ ডিসেম্বর একাধিকবার ভারতীয় বাহিনীর সঙ্গে যোগাযোগ করতে গিয়ে ব্যর্থ হন মহিউদ্দীন জাহাঙ্গীর৷ পরে একা ভারতীয় বাহিনীর সহযোগিতা ছাড়াই শত্রুদের অবস্থানে আক্রমণ করে শহীদ হন তিনি৷

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার সীমান্তবর্তী ঐতিহাসিক সোনা মসজিদ চত্বরে এই বীর সেনাকে সমাহিত করা হয়৷ মসজিদের পূর্ব আঙিনার দক্ষিণ পাশে বর্ণিল পাথরে বাঁধাই করা দুটি সমাধির একটি ক্যাপ্টেন মহিউদ্দীন জাহাঙ্গীরের৷ মসজিদের দেয়ালের বাইরে নির্মাণ করা হয়েছে ক্যাপ্টেন মহিউদ্দীন জাহাঙ্গীর স্মৃতিসৌধ৷ এছাড়া বরিশালের বাবুগঞ্জে তাঁর সম্মানে ইউনিয়নের নামকরণ করা হয়েছে ‘মহিউদ্দীন জাহাঙ্গীর ইউনিয়ন'৷ তাঁর গ্রামে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দীন জাহাঙ্গীর স্মৃতি জাদুঘর ও গ্রন্থাগার৷

বীরশ্রেষ্ঠ সিপাহি মোহাম্মদ হামিদুর রহমান
সর্বকনিষ্ঠ বীরশ্রেষ্ঠমোহাম্মদ হামিদুর রহমানের জন্ম ১৯৫৩ সালের ২ ফেব্রুয়ারি তৎকালীন যশোর জেলার মহেশপুর উপজেলার খর্দ্দ খালিশপুর গ্রামে৷ বাবা আব্বাস আলী মন্ডল এবং মা মোসাম্মাৎ কায়সুন্নেসা৷ খালিশপুর প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং স্থানীয় নাইট স্কুলে সামান্য লেখাপড়া শেষ করে ১৯৭০ সালে তিনি যোগ দেন পাকিস্তান সেনাবাহিনীর সিপাহি পদে৷ সেনাবাহিনীতে যোগ দেয়ার পর প্রশিক্ষণের জন্য তাঁকে পাঠানো হয় চট্টগ্রামের ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্ট সেন্টারে৷

১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ পাকিস্তান সেনাবাহিনীর আক্রমণের মুখে গ্রামে পালিয়ে আসেন৷ সেখান থেকে মুক্তিযুদ্ধে যোগ দেওয়ার জন্য চলে যান সিলেট জেলার শ্রীমঙ্গল থানার ধলই চা বাগানের পূর্ব প্রান্তে অবস্থিত ধলই বর্ডার আউটপোস্টে৷ ৪নং সেক্টরে যুদ্ধ করেন তিনি৷ ১৯৭১ সালের অক্টোবর মাসে হামিদুর রহমান ১ম ইস্টবেঙ্গলের সি কোম্পানির হয়ে ধলই সীমান্তের ফাঁড়ি দখল করার অভিযানে অংশ নেন৷ অক্টোবরের ২৮ তারিখে ১ম ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্ট ও পাকিস্তান বাহিনীর ৩০-এ ফ্রন্টিয়ার রেজিমেন্টের মধ্যে তুমুল সংঘর্ষ বাধে৷ তিনি পাহাড়ি খালের মধ্য দিয়ে বুকে হেঁটে গ্রেনেড নিয়ে পাকিস্তান বাহিনীর মেশিনগান পোস্টে আক্রমণ শুরু করেন৷ দুটি গ্রেনেড সফলভাবে মেশিনগান পোস্টে আঘাত হানে, কিন্তু তার পরপরই হামিদুর রহমান গুলিবিদ্ধ হন৷ সে অবস্থাতেই তিনি মেশিনগান পোস্টে গিয়ে সেখানকার দুই জন পাকিস্তানী সৈন্যের সাথে হাতাহাতি যুদ্ধ শুরু করেন৷ এভাবে আক্রণের মাধ্যমে হামিদুর রহমান এক সময় মেশিনগান পোস্টকে অকার্যকর করে দিতে সক্ষমও হন৷ এই সুযোগে ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টের মুক্তিযোদ্ধারা পাকিস্তান সেনাবাহিনীকে পরাস্ত করে সীমানা ফাঁড়িটি দখল করেন৷ কিন্তু ততক্ষণে হামিদুর রহমান আর বেঁচে নেই৷

হামিদুর রহমানের মৃতদেহ সীমান্তের অল্প দূরে ভারতীয় ভূখণ্ডে ত্রিপুরা রাজ্যের হাতিমেরছড়া গ্রামের স্থানীয় এক পারিবারিক গোরস্থানে দাফন করা হয়৷ ২০০৭ সালের ১০ ডিসেম্বর বাংলাদেশের তত্ত্বাবধায়ক সরকার হামিদুর রহমানের দেহাবশেষ বাংলাদেশে ফিরিয়ে আনে৷ ১১ই ডিসেম্বর রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমানকে ঢাকার বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে সমাহিত করা হয়৷
তাঁর সম্মানে নিজ গ্রাম ‘খর্দ্দ খালিশপুর'-এর নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় হামিদনগর৷ সেখানে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান স্মৃতি জাদুঘর ও পাঠাগার৷ এছাড়া শ্রীমঙ্গলের ধলই সীমান্তে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান স্মৃতিসৌধ৷

শেয়ার করুন

0 comments: