বুধবার, এপ্রিল ২২, ২০২০

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে বাড়ি দেওয়া হচ্ছে শেরপুরের সেই ভিক্ষুককে

মহামারীতে কর্মহীন হয়ে পড়া মানুষের সহায়তায় ১০ হাজার টাকা দান করেন শেরপুরের ভিক্ষুক বৃদ্ধ নজিমুদ্দিন।
যখন কোটিপতিরা টাকার নেশায় চাল চুরি, নকল মাস্ক সাপ্লাই করছে তখন নাজিম উদ্দীনের জীবনের সঞ্চয় ১০ দশ হাজার টাকা তুলে দিলেন ঝিনাইগাতী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার হাতে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টিগোচর হয় এই সংবাদ, তিনি তার দপ্তর থেকে নাজিমউদ্দিনকে ভিটেমাটি ও  পাকা বাড়ি করে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন জেলার ঝিনাইগাতী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে।
ঝিনাইগাতী উপজেলার কাংশা ইউনিয়নের গান্ধীগাঁও গ্রামের বাড়ি নাজিমুদ্দিনের,ভিক্ষা করে সংসার চালান। বসতঘর মেরামত করার জন্য দুই বছর ধরে ১/২ টাকা করে জমিয়েছিলেন ভিক্ষার ১০ হাজার টাকা।

ওই টাকা তিনি কোভিড-১৯ মহামারীতে ঘরবন্দী  কর্মহীন মানুষের জন্য দান করেন এই সময় তিনি বলেন এই বিপদে দশজন এই টাকায় উপকৃত হবে। টাকাটা তিনি ইউএনও রুবেল মাহমুদের কাছে ত্রাণ তহবিলের জন্য দেন।

   প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকে নাজিমউদ্দিনকে ভিটেমাটি ও পাকা বাড়ি করে দেওয়ার  নির্দেশ আসে।তাছাড়া ভিক্ষা না করার জন্য ঘরের পাশে স্হায়ী দোকান করে দেবেন এবং তার চিকিৎসাভাতা দেবেন বলেও জানিয়েছেন। 
নাজিম উদ্দিনকে খাসজমি বন্দোবস্তসহ বাড়ি করে দেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে বলে জানান ইউএনও।

শেয়ার করুন

0 comments: